2019 ICP Infinity Award: Shahidul Alam

Shahidul Alam is a Bangladeshi photojournalist, teacher, and social activist. A TIME “Person of the Year”, he is celebrated for his commitment to using his craft to preserve democracy in his country at all costs. See the project at http://mediastorm.com/clients/2019-icp-infinity-awards-shahidul-alam

Silence is not an option

Shahidul Alam is a Bangladeshi photojournalist, teacher, and social activist. A TIME “Person of the Year”, he is celebrated for his commitment to using his craft to preserve democracy in his country at all costs. See the project at http://mediastorm.com/clients/2019-icp-infinity-awards-shahidul-alam

The award ceremony in New York by Jose-Carlos Mariategui

The Free Shahidul Campaign

I am unable to individually thank all the people who stood by me in those dark days, but I hope you will accept the heartfelt appreciation by me and the many others  who were at the forefront of the fight to get me released. The case still stands and I face a potential maximum sentence of fourteen years. So the fight to drop the case must continue.

438 Indian eminent personalities demand Shahidul’s release

Continue reading “The Free Shahidul Campaign”

Desperation

The selfie sessions have now become a part of my life. Ever since coming out of Keraniganj, and possibly more, after becoming Time Magazine’s Person of the Year 2018, I’m stopped in the streets, in shopping malls, bookstores, roadside cafes, at restaurants and weddings. The most recent spree was at the National Press Club on the 11th, where there was a public hearing of parliamentary candidates who were victims of election fraud. I have no idea who this guy is, but Blitz has again come up with a howler.

Posting on Blitz of selfie taken on 11th January 2018 by unknown person when I was at National Press Club on the 11th, January 2019, where there was a public hearing of parliamentary candidates who were victims of election fraud

They’re getting somewhat desperate in their smear campaign. Not having been able to come up with anything vaguely credible, they are now getting quite ridiculous. First I was a Mossad Agent. Then ISI. Then they tried the Hizbut Tahrir poster. Now I’m a Jamaati! I’d better be careful. I’ve been photographed with the President, and several cabinet ministers. They’ll accuse me of being an Awami Leaguer next. Now that would ruin anybody’s reputation!

 

Reply to Arundhati: Yes, We Will Rise

Dearest Arundhati,

It was a letter I read and reread long before it appeared before my eyes. It was through layers of metal bars that I strained to listen to Rahnuma’s words. At over 130 decibels, the noise made by us screaming prisoners, straining to hear and be heard, was akin to a crowded stadium or a fire siren. As she repeated her words over and over again, I faintly heard, Arundhati. Letter. It was just over a hundred days that I had been incarcerated. A hundred days since I’d slept on my own bed, fed my fish, cycled down the streets of Dhaka. A hundred days since I’d pressed my shutter as I searched for that elusive light.

Arundhati Roy with Maati Ke Laal in her flat in Delhi. Photo: Shahidul Alam/Drik/Majority World

Those words, screamed out but barely heard was the nourishment I needed. Did you write it by hand? What was the paper like? In this digital age, you probably used a keyboard. What font had you used? What point size? And the words. Words that you so gracefully string together. I relished the imagined words. Your words. I missed words as I missed my bed, my fish and Rahnuma’s touch. When they asked me what I needed in jail, books were on top of my list. The first lot of books came in. Mujib’s prison diaries, Schendel’s History of Bangladesh, and the book you’d given me when we last met, The Ministry of Utmost Happiness. I’d been meaning to read it ever since we said goodbye in Delhi, but our lives had been taken over by the immediacy of our struggles. Now I had the time. Continue reading “Reply to Arundhati: Yes, We Will Rise”

Raghu Rai’s Open Letter to Sheikh Hasina

An Open Letter to Our Honorable Prime Minister Sheikh Hasina

Ms. Sheikh Hasina, Honorable Prime Minister
Government of the People’s Republic of Bangladesh
Prime Minister’s Office. Old Sangsad Bhaban
Tejgaon, Dhaka-1215, Bangladesh

My name is Raghu Rai. I have been honored by you in 2012 as friends of Bangladesh Liberation War who photographed the Bangladesh war for freedom by Mukti Bahini supported by your neighbors and friends to transform east Pakistan into an independent nation today known as Bangladesh. Bangladesh is a country of poets, writers, musicians and some of them migrated to India during the partition. Our bond is deep not only culturally but spiritually as well.

Madam Prime minister, you are the daughter of great revolutionary Sheikh Mujibur Rehman who rose against the repressive and torturous regime of Pakistani generals—and in return the generals decided to teach Bangladeshis a lesson. Thus the nation rose against Pakistan under the leadership of Sheikh Sahib and this is how Bangladesh came into being. So let’s not teach our boys a lesson.

Hon’ble Madam, Shahidul Alam founder of DRIK and Pathshala has been a great admirer of Sheikh Sahib, and I have had the privilege of knowing him as a close friend for the last 3 decades. I have no doubt in my mind that Shahidul is one of those rare breeds committed to truth and honesty, and can die for his country. It seems last night Shahidul was picked up by 20-30 men from detective branch of police, and was tortured and couldn’t walk on his feet. My heart bleeds for that. Continue reading “Raghu Rai’s Open Letter to Sheikh Hasina”

Arundhati Roy’s letter to Shahidul Alam

PEN International welcomes the news that Shahidul Alam was granted bail today. PEN continues to call for the case against Alam to be dropped.

“While it is a relief to see the court in Dhaka granting bail to Shahidul Alam, it is by no means certain that he is free. The government is still determined to appeal in its ill-conceived pursuit of Shahidul on ridiculous charges under Bangladesh’s draconian laws. Those charges must be dropped immediately and Shahidul should be released unconditionally and his freedoms restored – freedoms which should never have been taken away,” said Salil Tripathi, Chair of PEN’s Writers in Prison Committee.

15th November 2018

PEN International’s Day of the Imprisoned Writer


Arundhati Roy by Shahidul Alam

Dear Shahidul,

It’s been more than a hundred days now since they took you away. Times aren’t easy in your country or in mine, so when we first heard that unknown men had abducted you from your home, of course we feared the worst. Were you going to be “encountered” (our word in India for extra-judicial murder by security forces) or killed by “non-state actors”? Would your body be found in an alley, or floating in some shallow pond on the outskirts of Dhaka? When your arrest was announced and you surfaced alive in a police station, our first reaction was one of sheer joy.

Am I really writing to you? Perhaps not. If I were, I wouldn’t need to say very much beyond, “Dearest Shahidul, no matter how lonely your prison cell, know that we have our eyes on you. We are looking out for you.” Continue reading “Arundhati Roy’s letter to Shahidul Alam”

সেনাবাহিনী বিষয়ে আমার বক্তব্য খন্ডিতভাবে প্রচার করে বিভ্রান্তির সুযোগ তৈরি করা হচ্ছে

সম্প্রতি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক নির্বাচন পরিচালনা কমিটি নামক একটি ফেইসবুক পেইজ থেকে ২০১৩ সালে ডয়েচে ওয়েলেকে দেয়া আমার একটি সাক্ষাৎকার থেকে খন্ডিতভাবে এক টুকরো অংশ উদ্ধৄত করে একটি ভিডিও কন্টেন্ট তৈরি করে সেখানে বলেছে:

“দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী ও জনগণকে মুখোমুখি করতে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল শহিদুল আলম। সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করতে আন্তর্জাতিক একটি মিডিয়াকে বেছে নিয়েছিলেন তিনি।”

২১ বছর আগে অপহৃত হিল উইমেন্স ফেডারেশেনের নেত্রী কল্পনা চাকমাকে নিয়ে আমি ২০১৩ সালে যেই প্রদশর্নী করেছিলাম তার উপর দেয়া ওই সাক্ষাৎকারের প্রায় পুরোটুকু ফেলে দিয়ে মাঝখান থেকে  খন্ডিতভাবে ছোট এক টুকরো অংশ কেটে নিয়ে তারা যেভাবে প্রচার করছে তার থেকে বিভ্রান্তির সুযোগ তৈরি হচ্ছে। উল্লেখ্য, কল্পনা চাকমার অপহরণের সাথে সেনা সদস্যর সংশ্লিষ্টতার যে অভিযোগ, যার উল্লেখ আওয়ামী লীগের শীর্ষ স্থানীয় নেতা ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীরও ২০০৯ সালের একটি টিভি টক শোতে করেছিলেন, সেই অভিযোগের কোন বিচার এত বছর ধরে হয়নি। পাশাপাশি পার্বত্য অঞ্চলে যে জাতিগত নিপীড়ন চলমান তারও কোন সুরাহা দশকের পর দশক ধরে হয়নি। এরই প্রেক্ষাপটে বিষয়গুলো নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সরকার ও সামরিক বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে সামগ্রিকতার আলোকে কিছু আলোচনা আমি ঐ সাক্ষাতকারে করি। পাশাপাশি আমার যে প্রদর্শনী কল্পনা চাকমার অপহরণ নিয়ে হয়েছিল সেই প্রদর্শনীরও নানা দিক আমি সেখানে তুলে ধরি। ফলে সেখানে আমাকে কল্পনা চাকমার অপহরণের উপর বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন করার পর এক পর্যায়ে যখন প্রশ্ন করা হয় “তার মানে এটা কি বলা যায় যে কোন সরকারই আসলে সামরিক বাহিনীর বিষয়ে বিশেষ কোন কিছু, কোন উদ্যোগ গ্রহণে আগ্রহী নয়?” তখন এর উত্তরে আমি যা বলি তা ছিল নিম্নরূপ:

“আমাদের সামরিক বাহিনীর প্রয়োজন আছে কিনা সেটাই আমি প্রথমে প্রশ্ন করি। তেতাল্লিশ বছর ধরে আমরা যে সামরিক বাহিনীকে লালন করছি তারা কিন্তু একবারও দেশ রক্ষার কাজে কোনভাবে নিয়োজিত হয়নি। সেটা ভালো। আমাদের শান্তি আছে সেটা ভাল। তবে বিশাল অঙ্ক কিন্তু এদের উপর ব্যয় করা হচ্ছে যেটা শিক্ষায় যেতে পারত, স্বাস্থ্যে যেতে পারত, অন্যান্য ধরনের উন্নয়নে যেতে পারত, সেটা হয়নি। এমনকি যে জায়গায় তাদের থেকে আমরা কিছু আশা করতে পারি আমাদের এই বর্ডারে যে বাঙালীদের পাখির মতো গুলি করা হচ্ছে, বিএসএফরা গুলি করছে সেখানে প্রতিবাদ করা, সেখানে তাদের অন্তত এই পরিস্থিতিতে বাঙালীদের, বাংলাদেশীদের বাঁচানো সেই কাজেও তারা কোন কিছু করেনি। তাদের একমাত্র কাজ শোষণ করা। এই শোষণ তো পাকিস্তানীরা আমাদের করেছে। আমাদের নিজেদের মিলিটারী আমাদের শোষণ করবে এটা আমরা হজম করব এটা হবে কেন? কিন্তু যে কথা আপনি বললেন, যখন যে সরকারই এসেছে এদেরকে তুষ্ট করাই ছিল তাদের প্রধান কাজ। এবং এটাও ভাবতে হবে যে আমাদের দেশের জাতির পিতাকে যারা হত্যা করেছে, জেনারেল জিয়াকে যারা হত্যা করেছে, আমাদের নেতাদের জেলে যারা হত্যা করেছে তারা কিন্তু এই দলেরই মানুষ।”

কিন্তু আমার উত্তর থেকে বিএসএফ এর সীমান্ত হত্যা ঠেকাতে না পারা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় নেতাদের হত্যা বিষয়ক  খুবই গুরুত্বপূর্ণ দুটি অংশ সম্পূর্ণরূপে বাদ দিয়ে  তারা যেভাবে খন্ডিত আকারে আমার বক্তব্যটি প্রচার করছে তা নিম্নরূপ:

“আমাদের সামরিক বাহিনীর প্রয়োজন আছে কিনা সেটাই আমি প্রথমে প্রশ্ন করি। তেতাল্লিশ বছর ধরে আমরা যে সামরিক বাহিনীকে লালন করছি তারা কিন্তু একবারও দেশ রক্ষার কাজে কোনভাবে নিয়োজিত হয়নি। সেটা ভালো। আমাদের শান্তি আছে সেটা ভালো। তবে বিশাল অঙ্ক কিন্তু এদের উপর ব্যয় করা হচ্ছে যেটা শিক্ষায় যেতে পারত, স্বাস্থ্যে যেতে পারত, অন্যান্য ধরনের উন্নয়নে যেতে পারত, সেটা হয়নি। তাদের একমাত্র কাজ শোষণ করা। এই শোষণ তো পাকিস্তানিরা আমাদের করেছে। আমাদের নিজেদের মিলিটারি আমাদের শোষণ করবে এটা আমরা হজম করব এটা হবে কেন?”

এভাবে আমার প্রায় পুরো সাক্ষাতকারটাই বাদ দিয়ে মাঝখান থেকে একটি প্রশ্নকে বেছে নিয়ে তার উত্তরে আমি যা বলেছিলাম তারও গুরুত্বপূর্ণ দুইটি অংশ বাদ দিয়ে যেভাবে খন্ডিতভাবে আমার বক্তব্যকে উপস্থাপন করা হয়েছে তাতে বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে। আমার কাছে এটা বিস্ময়কর যে আওয়ামী লীগের একটি ফেসবুক পেইজ কি করে আমার উত্তর থেকে জাতির পিতা হত্যাকান্ডের মতো এতো গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশকে ছেঁটে ফেলল! আমি মনে করি সামগ্রিকতার আলোকে সামরিক বাহিনীসহ রাষ্ট্রের যেকোন প্রতিষ্ঠান নিয়েই গঠনমূলক সমালোচনা করা প্রতিটি নাগরিকের দায়িত্ব এবং জাতীয় স্বার্থেই সামরিক বাহিনী সহ প্রতিটি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের উচিত এসব গঠনমূলক সমালোচনাকে নির্মোহভাবে বিচার-বিশ্লেষণ করা, আমলে নেয়া। সেই রাস্তা বন্ধ করাই বরং সামরিক বাহিনীসহ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে জনগণের মুখোমুখি করার ষড়যন্ত্রের সামিল।

আমার সাক্ষাতকারের অডিও লিংক পাবেন এখানে। আগ্রহীরা শুনে মিলিয়ে দেখতে পারেন।

শহিদুল আলম

 

 

Doing the Bhangra Down India Gate

Where’s your bicycle? The Uber driver asked me jokingly. Yes, I had been known in photography circles and it is true that I did know a few Nobel Laureates. Given that I am a public speaker, and wear several hats, I do also come across the odd head of state, or celebrity. I’d be overstating it if I said they all knew me well. I have featured prominently in a film produced by Sharon Stone, but the long conversation on the phone, after my release, was very much an exception. But now that I have Uber drivers recognizing me, and people stopping me in the streets for selfies, I need to be careful I don’t trip over my own ego. Maybe I should be thanking the same person that everyone else thanks for everything that ever happens in Bangladesh.

I flatly deny making payments to the Bangladesh government for running a media campaign on my behalf. Neither is it true that I deliberately planted the inconsistencies in their fake news, making it appear they can’t tell a Kaffiey from a tablecloth. Let’s not get too technical. It started with me being a Mossad agent and taking money from Israel. Now I’ve been placed in the Al Qaeda farm, and definitely anti Israel. Considering that Israel is the one country that my government does not have diplomatic relationships with, and the only country my passport is not valid for, being anti Israel should theoretically make me a pal. My enemy’s enemy is my friend and all that.

Screen shot of Arundhati Roy and Shahidul Alam in Blitz taken on December 19
Continue reading “Doing the Bhangra Down India Gate”

Behind the Scenes: Time Person of the Year 2018

Person Of The Year

Moises Saman photographing Shahidul Alam on Dec. 5 on his Dhaka, Bangladesh, rooftop