Silence is not an option

Shahidul Alam is a Bangladeshi photojournalist, teacher, and social activist. A TIME “Person of the Year”, he is celebrated for his commitment to using his craft to preserve democracy in his country at all costs. See the project at http://mediastorm.com/clients/2019-icp-infinity-awards-shahidul-alam

The award ceremony in New York by Jose-Carlos Mariategui

There’s Power in Photography: The Undying Resilience of Dhaka’s Chobi Mela Festival

Interview with Shahidul Alam by Daniel Boetker-Smith
Photojournalist and activist Shahidul Alam speaks out about the effects of his detainment on Dhaka’s Chobi Mela Festival, and how the event still plans to persevere for years to come.
SHAHIDUL ALAM Photo: Tom Hatlestad
The year 2018 is one that Shahidul Alam, and the wider international photographic community, will not forget so easily. In August last year, just hours after an interview on Al Jazeera where he openly criticized the Bangladesh government’s violent response to student protests, Alam was forcibly taken from his home by the Dhaka Metropolitan Police and arrested.
While remanded, Alam was interrogated and beaten. Following a significant outpouring of support and pressure from Amnesty International, the Committee to Protect Journalists, Reporters Without Borders and other Bangladeshi and international organizations and notable figures, Alam was released after spending 107 days in prison.
As a widely respected activist, photojournalist and academic, Alam is most prominently known as founder of the Drik Picture Library, the Pathshala South Asian Media Institute and the biannual Chobi Mela Photography Festival in Dhaka, Bangladesh, which returns on February 28th of this year for its tenth edition.

In one of his first major interviews since the events of late last year, Alam talks to Daniel Boetker-Smith about the upcoming festival, the political power of photography, and the state of the medium in Bangladesh, South Asia and beyond.


Tunisia, from the series “Exodus from Libya”. Bangladeshi migrant labourers who have fled the unrest in Libya walking along a road from the border post at Ras Ajdir towards a refugee camp set up by UNHCR near the town of Ben Gardane in Tunisia. Tens of thousands of people have fled the unrest in Libya, which started on 17 February 2011 as a popular uprising against the 41-year rule of Libyan leader Muammar Gaddafi. © Chris de Bode

DBS: Given recent events that we have all followed closely, how has planning for this Festival been different to previous years?

SA: The last few months have meant that this year’s festival is coming back to its roots. Chobi Mela began as a very small event, and over the past 20 years it grew significantly in stature. But this year, we are activating a diverse range of less formal exhibition venues around Dhaka. This shift is one of necessity, because Chobi Mela is not an organization that everyone in Bangladesh wants to work with at the moment—we are seen as dangerous. A lot of previous supporters and sponsors of the festival are businesses in Dhaka, and right now they are being tested. They know that their decisions are being monitored and that there is high level of government surveillance surrounding the event. Because of this, we have had to be more inventive, finding new ways to show work, utilizing different types of exhibition and event spaces for photographers and audiences. Some public venues and government-owned buildings are no longer available to us, and we are choosing to see this as an opportunity to move away from the traditional ‘white cube’ mode of presentation, to a much more raw and community-oriented festival. Continue reading “There’s Power in Photography: The Undying Resilience of Dhaka’s Chobi Mela Festival”

Lucie Awards Honoree Shahidul Alam for Humanitarian Award

Tribute video for 2018 Lucie Awards Honoree Shahidul Alam for the Humanitarian Award.

Presented at Zankel Hall at Carnegie Hall in New York City, Sunday October 28th 2018. Presented and Received by Gayatri Spivak.

2018 Lucie Awards Honoree: Shahidul Alam, Humanitarian Award from Lucie Foundation on Vimeo.

The Free Shahidul Campaign

I am unable to individually thank all the people who stood by me in those dark days, but I hope you will accept the heartfelt appreciation by me and the many others  who were at the forefront of the fight to get me released. The case still stands and I face a potential maximum sentence of fourteen years. So the fight to drop the case must continue.

438 Indian eminent personalities demand Shahidul’s release

Continue reading “The Free Shahidul Campaign”

‘The Shahidul Alam I Know Is Gentle’

Urvashi Butalia writes about the times she met and worked with the Bangladeshi photojournalist, who was granted bail by the High Court in Dhaka after 102 days of detention.

I cannot now remember when I first met Shahidul Alam, but I think it was some twenty or more years ago when both of us served on the board of an organisation called Panos South Asia. My first impression of him was of a somewhat large, bearded man who spoke with an accent I could not place. It did not take long – perhaps a few hours – for this to change and for the warm, affectionate and caring human being to emerge.

Poppy McPherson

@poppymcp

Iconic shot of Bangladeshi photojournalist and rights activist Shahidul Alam, shared by the campaign. He finally got bail today after more than 100 days in prison, accused of spreading propaganda. He was arrested after posting on Facebook about protests in Dhaka.

To me, Shahidul came across that time as the best kind of nationalist. He loved – he still does – his country Bangladesh. His stint abroad – I never actually knew where he has studied or spent any time – had actually left this feeling much stronger in him. He told all of us about Drik, the photo agency that showcased photographers from the global South and that fiercely protected their rights and their work, refusing to accept that simply because they belonged to the South, their value was any the less. Drik charged for their photos as did international agencies, and why not, was Shahidul’s question. Continue reading “‘The Shahidul Alam I Know Is Gentle’”

Raghu Rai’s Open Letter to Sheikh Hasina

An Open Letter to Our Honorable Prime Minister Sheikh Hasina

Ms. Sheikh Hasina, Honorable Prime Minister
Government of the People’s Republic of Bangladesh
Prime Minister’s Office. Old Sangsad Bhaban
Tejgaon, Dhaka-1215, Bangladesh

My name is Raghu Rai. I have been honored by you in 2012 as friends of Bangladesh Liberation War who photographed the Bangladesh war for freedom by Mukti Bahini supported by your neighbors and friends to transform east Pakistan into an independent nation today known as Bangladesh. Bangladesh is a country of poets, writers, musicians and some of them migrated to India during the partition. Our bond is deep not only culturally but spiritually as well.

Madam Prime minister, you are the daughter of great revolutionary Sheikh Mujibur Rehman who rose against the repressive and torturous regime of Pakistani generals—and in return the generals decided to teach Bangladeshis a lesson. Thus the nation rose against Pakistan under the leadership of Sheikh Sahib and this is how Bangladesh came into being. So let’s not teach our boys a lesson.

Hon’ble Madam, Shahidul Alam founder of DRIK and Pathshala has been a great admirer of Sheikh Sahib, and I have had the privilege of knowing him as a close friend for the last 3 decades. I have no doubt in my mind that Shahidul is one of those rare breeds committed to truth and honesty, and can die for his country. It seems last night Shahidul was picked up by 20-30 men from detective branch of police, and was tortured and couldn’t walk on his feet. My heart bleeds for that. Continue reading “Raghu Rai’s Open Letter to Sheikh Hasina”

Arundhati Roy’s letter to Shahidul Alam

PEN International welcomes the news that Shahidul Alam was granted bail today. PEN continues to call for the case against Alam to be dropped.

“While it is a relief to see the court in Dhaka granting bail to Shahidul Alam, it is by no means certain that he is free. The government is still determined to appeal in its ill-conceived pursuit of Shahidul on ridiculous charges under Bangladesh’s draconian laws. Those charges must be dropped immediately and Shahidul should be released unconditionally and his freedoms restored – freedoms which should never have been taken away,” said Salil Tripathi, Chair of PEN’s Writers in Prison Committee.

15th November 2018

PEN International’s Day of the Imprisoned Writer


Arundhati Roy by Shahidul Alam

Dear Shahidul,

It’s been more than a hundred days now since they took you away. Times aren’t easy in your country or in mine, so when we first heard that unknown men had abducted you from your home, of course we feared the worst. Were you going to be “encountered” (our word in India for extra-judicial murder by security forces) or killed by “non-state actors”? Would your body be found in an alley, or floating in some shallow pond on the outskirts of Dhaka? When your arrest was announced and you surfaced alive in a police station, our first reaction was one of sheer joy.

Am I really writing to you? Perhaps not. If I were, I wouldn’t need to say very much beyond, “Dearest Shahidul, no matter how lonely your prison cell, know that we have our eyes on you. We are looking out for you.” Continue reading “Arundhati Roy’s letter to Shahidul Alam”

Justice for Shahidul Alam

By Mahfuz Anam: The Daily Star

Who is this man whose arrest has sparked outrage and condemnation from global bodies and media, including Amnesty International, Committee to Protect Journalists (CPJ), PEN International, SAMDEN (South Asia Media Defenders Network) and publications such as the Guardian, The Washington Post and many South Asian media?

Shahidul Alam. Photo Courtesy: Rahnuma Ahmed

He is one of the most respected photographers in the world. Very few Bangladeshi of his profession has reached his present global stature. His pictures have been published in almost all the global newspapers and magazines in the world. He is among that elite corps of global photographers who is regularly hired by the most renowned global publications to do assignments in various parts of the world. The Guardian (London) while carrying news of his arrest (Aug 6) wrote “his photographs have been published in every major western media outlet, including The New York Times, Time Magazine and National Geographic in a career that has spanned four decades.” Only those in the world of professional photography can really appreciate the honour and prestige of getting published in the media of such renown. Continue reading “Justice for Shahidul Alam”

সেনাবাহিনী বিষয়ে আমার বক্তব্য খন্ডিতভাবে প্রচার করে বিভ্রান্তির সুযোগ তৈরি করা হচ্ছে

সম্প্রতি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক নির্বাচন পরিচালনা কমিটি নামক একটি ফেইসবুক পেইজ থেকে ২০১৩ সালে ডয়েচে ওয়েলেকে দেয়া আমার একটি সাক্ষাৎকার থেকে খন্ডিতভাবে এক টুকরো অংশ উদ্ধৄত করে একটি ভিডিও কন্টেন্ট তৈরি করে সেখানে বলেছে:

“দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী ও জনগণকে মুখোমুখি করতে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল শহিদুল আলম। সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করতে আন্তর্জাতিক একটি মিডিয়াকে বেছে নিয়েছিলেন তিনি।”

২১ বছর আগে অপহৃত হিল উইমেন্স ফেডারেশেনের নেত্রী কল্পনা চাকমাকে নিয়ে আমি ২০১৩ সালে যেই প্রদশর্নী করেছিলাম তার উপর দেয়া ওই সাক্ষাৎকারের প্রায় পুরোটুকু ফেলে দিয়ে মাঝখান থেকে  খন্ডিতভাবে ছোট এক টুকরো অংশ কেটে নিয়ে তারা যেভাবে প্রচার করছে তার থেকে বিভ্রান্তির সুযোগ তৈরি হচ্ছে। উল্লেখ্য, কল্পনা চাকমার অপহরণের সাথে সেনা সদস্যর সংশ্লিষ্টতার যে অভিযোগ, যার উল্লেখ আওয়ামী লীগের শীর্ষ স্থানীয় নেতা ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীরও ২০০৯ সালের একটি টিভি টক শোতে করেছিলেন, সেই অভিযোগের কোন বিচার এত বছর ধরে হয়নি। পাশাপাশি পার্বত্য অঞ্চলে যে জাতিগত নিপীড়ন চলমান তারও কোন সুরাহা দশকের পর দশক ধরে হয়নি। এরই প্রেক্ষাপটে বিষয়গুলো নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সরকার ও সামরিক বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে সামগ্রিকতার আলোকে কিছু আলোচনা আমি ঐ সাক্ষাতকারে করি। পাশাপাশি আমার যে প্রদর্শনী কল্পনা চাকমার অপহরণ নিয়ে হয়েছিল সেই প্রদর্শনীরও নানা দিক আমি সেখানে তুলে ধরি। ফলে সেখানে আমাকে কল্পনা চাকমার অপহরণের উপর বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন করার পর এক পর্যায়ে যখন প্রশ্ন করা হয় “তার মানে এটা কি বলা যায় যে কোন সরকারই আসলে সামরিক বাহিনীর বিষয়ে বিশেষ কোন কিছু, কোন উদ্যোগ গ্রহণে আগ্রহী নয়?” তখন এর উত্তরে আমি যা বলি তা ছিল নিম্নরূপ:

“আমাদের সামরিক বাহিনীর প্রয়োজন আছে কিনা সেটাই আমি প্রথমে প্রশ্ন করি। তেতাল্লিশ বছর ধরে আমরা যে সামরিক বাহিনীকে লালন করছি তারা কিন্তু একবারও দেশ রক্ষার কাজে কোনভাবে নিয়োজিত হয়নি। সেটা ভালো। আমাদের শান্তি আছে সেটা ভাল। তবে বিশাল অঙ্ক কিন্তু এদের উপর ব্যয় করা হচ্ছে যেটা শিক্ষায় যেতে পারত, স্বাস্থ্যে যেতে পারত, অন্যান্য ধরনের উন্নয়নে যেতে পারত, সেটা হয়নি। এমনকি যে জায়গায় তাদের থেকে আমরা কিছু আশা করতে পারি আমাদের এই বর্ডারে যে বাঙালীদের পাখির মতো গুলি করা হচ্ছে, বিএসএফরা গুলি করছে সেখানে প্রতিবাদ করা, সেখানে তাদের অন্তত এই পরিস্থিতিতে বাঙালীদের, বাংলাদেশীদের বাঁচানো সেই কাজেও তারা কোন কিছু করেনি। তাদের একমাত্র কাজ শোষণ করা। এই শোষণ তো পাকিস্তানীরা আমাদের করেছে। আমাদের নিজেদের মিলিটারী আমাদের শোষণ করবে এটা আমরা হজম করব এটা হবে কেন? কিন্তু যে কথা আপনি বললেন, যখন যে সরকারই এসেছে এদেরকে তুষ্ট করাই ছিল তাদের প্রধান কাজ। এবং এটাও ভাবতে হবে যে আমাদের দেশের জাতির পিতাকে যারা হত্যা করেছে, জেনারেল জিয়াকে যারা হত্যা করেছে, আমাদের নেতাদের জেলে যারা হত্যা করেছে তারা কিন্তু এই দলেরই মানুষ।”

কিন্তু আমার উত্তর থেকে বিএসএফ এর সীমান্ত হত্যা ঠেকাতে না পারা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় নেতাদের হত্যা বিষয়ক  খুবই গুরুত্বপূর্ণ দুটি অংশ সম্পূর্ণরূপে বাদ দিয়ে  তারা যেভাবে খন্ডিত আকারে আমার বক্তব্যটি প্রচার করছে তা নিম্নরূপ:

“আমাদের সামরিক বাহিনীর প্রয়োজন আছে কিনা সেটাই আমি প্রথমে প্রশ্ন করি। তেতাল্লিশ বছর ধরে আমরা যে সামরিক বাহিনীকে লালন করছি তারা কিন্তু একবারও দেশ রক্ষার কাজে কোনভাবে নিয়োজিত হয়নি। সেটা ভালো। আমাদের শান্তি আছে সেটা ভালো। তবে বিশাল অঙ্ক কিন্তু এদের উপর ব্যয় করা হচ্ছে যেটা শিক্ষায় যেতে পারত, স্বাস্থ্যে যেতে পারত, অন্যান্য ধরনের উন্নয়নে যেতে পারত, সেটা হয়নি। তাদের একমাত্র কাজ শোষণ করা। এই শোষণ তো পাকিস্তানিরা আমাদের করেছে। আমাদের নিজেদের মিলিটারি আমাদের শোষণ করবে এটা আমরা হজম করব এটা হবে কেন?”

এভাবে আমার প্রায় পুরো সাক্ষাতকারটাই বাদ দিয়ে মাঝখান থেকে একটি প্রশ্নকে বেছে নিয়ে তার উত্তরে আমি যা বলেছিলাম তারও গুরুত্বপূর্ণ দুইটি অংশ বাদ দিয়ে যেভাবে খন্ডিতভাবে আমার বক্তব্যকে উপস্থাপন করা হয়েছে তাতে বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে। আমার কাছে এটা বিস্ময়কর যে আওয়ামী লীগের একটি ফেসবুক পেইজ কি করে আমার উত্তর থেকে জাতির পিতা হত্যাকান্ডের মতো এতো গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশকে ছেঁটে ফেলল! আমি মনে করি সামগ্রিকতার আলোকে সামরিক বাহিনীসহ রাষ্ট্রের যেকোন প্রতিষ্ঠান নিয়েই গঠনমূলক সমালোচনা করা প্রতিটি নাগরিকের দায়িত্ব এবং জাতীয় স্বার্থেই সামরিক বাহিনী সহ প্রতিটি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের উচিত এসব গঠনমূলক সমালোচনাকে নির্মোহভাবে বিচার-বিশ্লেষণ করা, আমলে নেয়া। সেই রাস্তা বন্ধ করাই বরং সামরিক বাহিনীসহ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে জনগণের মুখোমুখি করার ষড়যন্ত্রের সামিল।

আমার সাক্ষাতকারের অডিও লিংক পাবেন এখানে। আগ্রহীরা শুনে মিলিয়ে দেখতে পারেন।

শহিদুল আলম